জীবনের গল্প!!!

0 comment 56 views

আমি সৌভাগ্যবান, কারণ আমি করোনা ভাইরাসের সময়টাকে স্বচক্ষে দেখতে পেয়েছি। আমি, প্রাচীনতম সিল্ক রোড এবং অন্যান্য আরও সব শহর দেখতে দেখতে একইসঙ্গে সেখানকার ঐতিহাসিক ঘটনাবলী সম্পর্কে জানেছি, অনেক ভালো আর খারাপ মানুষদের সঙ্গে পরিচিত হয়েছি। করোনার সেই সময়টার সবচেয়ে কঠিন অংশ ছিল অব্যাহতভাবে তড়িৎগতিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ। যেটি প্রায়ই, তাৎক্ষণিক ফলাফল বহন করত। সেটা কখনও ভালো হতো আবার কখনও খারাপ। ফলাফল যাই হোক, সেটা আমারই সিদ্ধান্ত ছিল, আমাকেই তার দায়ভার নিতে হবে। কিন্তু এই পুরো ব্যাপারটার একটি অসাধারণ দিক হলো, এর মাধ্যমেই একজন মানুষ তার “আপন সত্তা”র সন্ধান করতে থাকা নিজেকে যাচাই করতে পারে।

কিন্তু আমি কি শেষ পর্যন্ত আমার সকল ধাঁধার উত্তর খুঁজে পেয়েছি? উঁহু … আমার ধারণা সকল কিছুর শুরুতেই যে বিষয়টা আসে, সেটা হলো নিজের কাছে নিজে সৎ থাকা। আমি কি সেটা করতে ব্যর্থ হয়েছি? নাকি নিজেই নিজেকে ভুল বুঝিয়েছি যে, আমি আসলে এগুলো চাই নি। আমি কি সত্যিই এগুলো চেয়েছি? নাকি কেবল বাকিদের প্রত্যাশাগুলোই পূরণ করেছি মাত্র?…যাই হোক না কেন শেষ পর্যন্ত আমাকে নিজেকে মেনে নিতে পারা শিখতে হবে, এমনকি নিজের পরাজয়গুলোকেও।

করোনার কারণে গত বছরগুলোতে আমি আমার অনেক বন্ধুদের থেকে আত্মিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিলাম। শেষ পর্যন্ত আমার মনে হয়েছে, আমি আসলে জোর করে সম্পর্কগুলোকে টিকিয়ে রাখতে রাখতে ক্লান্ত হয়েপড়েছিলাম। হয়ত আমি বুঝতে পেরেছিলাম, যে সম্পর্কগুলোকে আমি এতটা মূল্যায়ন করি, সেগুলো টিকিয়ে রাখতে যদি আমাকে এতটাই চেষ্টা করতে হয় তবে সেই সব সম্পর্ক আদৌ টিকিয়ে রাখার যোগ্য নয়। যদি এতে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ এবং ভালোবাসা থাকে, তবে তাকে হারানোর ভয় থাকবে না। আমাকে যেটা করতে হবে সেটা হলো, যারা সম্পর্ককে সত্যিকার ভাবেই মূল্যায়ন করে তাদের প্রতি যত্নশীল হওয়া।

পর্যবেক্ষণগুলো হয়ত আদৌ আশাব্যঞ্জক নয়। যখন আপনাকে তাদের প্রয়োজন, তখনই যদি আপনি তাদের কাছে “উপযোগী” হয়ে ওঠেন তাহলে সেটা আপনি সহজেই বুঝে নিতে পারবেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এমনটা ঘটেছে, হাহাহা। কি নির্মম ও নিদারুণ সত্য!! কিন্তু যখন আমার মূল্যায়ন করা মানুষগুলো এমনটা করে, তখন আমি ভীষণরকম আহত হই, আমার ভেতরে নিজের প্রতি সন্দেহবোধ তৈরি হয়। আমার প্রতি তাদের ব্যবহার থেকে আমি নিজেকে সংজ্ঞায়িত করি; কি করুণ একটা অবস্থা!

গভীরভাবে চিন্তাভাবনা করা সবসময়ই ভালো; তাহলে, সেই নির্বোধ, কুৎসিত, বিব্রত এবং এলোমেলো আমিটাকে কবর দিতে পারা যায়। আশা করি ২০২৩ সালে, আমি আরেকটু বুদ্ধিমান হওয়ার চেষ্টা করব…

Leave a Comment

You may also like

Copyright @2023 – All Right Reserved by Shah’s Writing