এ সন্মান আমার নয়, আপনাদেরই

0 comment 37 views

নিউ ইয়র্কের মেয়র এরিক অ্যাডামস্ ‘বাংলাদেশ হেরিটেজ মান্থ’ আয়োজন করেছেন আজকে। বাংলাদেশ হেকিটেজ মান্থ উদযাপন মানে হলো ২৬ মার্চের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে নিউ ইয়র্কের কোনো মেয়রের পক্ষ থেকে এইটিই প্রথম আয়োজন।

এই  আয়োজনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন আমার পরম বন্ধুবর ফাহাদ সোলায়মান। এবং ফাহাদ সোলায়মানের উৎসাহেই আমাকেও যুক্ত হতে হলো এই আয়োজনে।

‘বাংলাদেশ হেরিটেজ মান্থ’ নামক এই আয়োজনে আজকে নিউ ইয়র্কের সন্মানিত একজন মানুষ হিসেবে আমার মতো অভাজনকে সন্মানিত করেছেন। সন্মান যিনি জানালেন তিনি হলেন নিউ ইয়র্ক সিটির মেয়র এরিক অ্যাডামস্। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে এ আমার গর্ব, এ আমার অহংকার, এ আমার এবং আমার পিতারই বিজয়।

এরিক অ্যাডামস্ আমাকে যতটা সন্মান জানিয়েছেন, আমার ভেতর থেকে আমি তারচেয়ে অনেক অনেক বেশি সন্মানিত হয়েছি। কারণ হলো আজকের এই অর্জন আমার একলার অর্জন নয়। এই অর্জন আমাদের প্রতিষ্ঠানে যুক্ত থেকে যারা যারা নিরলস কাজ করে চলেছেন- তাদের সকলের।

শুধু তাই নয়। একজন বাঙালী হিসেবে বাংলাদেশ ও বাংলা ভাষাভাষী সকল মানুষের অর্জন। কেননা আমি কেবল নিউ ইয়র্কে একজন অভিবাসী নই, আমি আমার দেশের ক্ষুদ্রতম একজন প্রতিনিধি। এখানে কাজের প্রয়োজনে আমাকে যাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হয়, ওঠাবসা করতে হয়, তাঁরা আমাকে দেখে আমার দেশ সম্পর্কে ধারণা নেন। আমার দেশের সংস্কৃতিকে জানেন এবং সর্বোপরি আমার দেশের সাধারণ মানুষেরা আসলে কেমন- সেটি বুঝতে চেষ্টা করেন।

এইটি কেবল আমার একলার ক্ষেত্রে নয়, এখানে বসবাস করা প্রতিটি বিদেশী মানুষের বেলাতেই সত্য। হ্যাঁ, আপনিই আপনার দেশের প্রতিনিধি। আপনার অর্জন আপনার দেশেরই অর্জন। তবে আপনার ব্যর্থতার দায় আপনার দেশের নয় কিন্তু। ব্যর্থতার দায় আপনার একলারই বটে। কেননা দেশ যে সংস্কৃতি আপনাকে শিখিয়েছে, সেটি আপনি নিজের মাঝে ধারণ করতে পারেন নি।

তো আজকে আমার এই সন্মাননা আমি সকল সহকর্মী ও দেশের সকল মানুষকে উৎসর্গ করলাম। পাশাপাশি সকলের কাছে অনুরোধ, ঠিক এভাবেই আমাকে সমর্থন জানাবেন, উৎসাহিত করে যাবেন যেন এভাবেই দেশের একজন অতি ক্ষুদ্র একজন প্রতিনিধি হিসেবে দেশকে সন্মানিত করে যেতে পারি।

Leave a Comment

You may also like

Copyright @2023 – All Right Reserved by Shah’s Writing