উদারতা

0 comment 69 views

আমেরিকান লেখক জেমস হেনরি বলেছেন, মানুষের জীবনে তিনটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমত উদার হওয়া। দ্বিতীয়ত উদার হওয়া। এবং তৃতীয়ত উদার হওয়া।

উদার হওয়া বিষয়টি আসলে কি?

এক কোথায় এর উত্তরটি হলো, মহৎ হওয়া। যিনি মহৎ, সংকীর্ণতা তাকে ছুঁতে পারে না। সংকীর্ণতার বাইরের মানুষ তিনি। সেকারণে তার দৃষ্টিতে সকলেই সুন্দর, সকল কিছুই সুন্দর। অন্যদিকে তিনিও সকলের কাছে সুন্দর মনের মানুষ বলে বিবেচিত হন।

তাহলে দেখা যাচ্ছে, উদারতা মানুষের ব্যক্তিত্বকে এক ভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে যায়। কিন্তু উদার কি করে হবে কেউ?

এখানে আমাকে দুঃখপ্রকাশ করতে হচ্ছে। কেননা চাইলেই কেউ উদার হয়ে উঠতে পারে না। উদারতাকে নিজের ভেতরে ধারণ করতে হয়। উদারতা শেকড় হলো ক্ষমাশীলতা আর সহানুভূতি।

অনেকেই বলেন, পৃথিবীর মানুষ নাকি খুব অসহিষ্ণু হয়ে উঠছে। চারদিকে যেসব চলছে তাতে এমন মনে হওয়াটা স্বাভাবিক বটে। তবে আমার মনে হয় ে ভাবনাটা এসেছে হতাশা থেকে। মানুষের চারপাশ জুড়ে তো এখন কেবলই প্রতিযোগিতা। আর প্রতিযোগিতা মানেই জয়-পরাজয়ের ভাবনা। সকলেই জিততে চায়। সকলেই চায় অন্যকে পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যেতে। এই এগিয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতায় অনেককে অনেক সময় নিষ্ঠুর আচরণও করে ফেলতে দেখি আমরা। জেতার নেশায় সে তখন খুব সংকীর্ণ হয়ে যায়।

অথচ ভেবে দেখুন, মানুষ সংকীর্ণ নয় মোটেও। মানুষ আসলে বিশাল। বিশাল বলেই মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, সমাজ গড়েছে, গড়েছে সমাজ ব্যবস্থা, রাষ্ট্র, দেশ, পৃথিবী। সেই মানুষ কি করে সংকীর্ণতার কাছে পরাজিত হবে? হয় নি আসলে। কিন্তু কখনও কখনও কোনও এক দুর্বল মুহূর্তে মানুষ আপন রিপু দিয়ে পরিচালিত হয়। তখন আমরা তার নিষ্ঠুর আর নৃশংস রূপটি দেখে ফেলি। যুদ্ধ দেখি, ধর্মীয় দাঙ্গা দেখি, জাতিগত হত্যা কিংবা শ্রেণিসংঘাতসহ আরও কত কিছু যে দেখি আমরা!

কিন্তু ভেবে দেখুন তো, ভেতরের ক্ষুদ্রতাকে যদি আমরা চেপে রাখতে পারি, আপন সীমাবদ্ধতাকে যদি এড়িয়ে চলতে পারি তাহলেই কিন্তু আমি-আপনি-আমরা সকলেই একেকজন বিশাল মানুষ হয়ে উঠতে পারি। বিশাল মানুষ হওয়া সহজ কাজ নয় বটে, আবার খুব যে কঠিন তাও কিন্তু নয়। অন্তত আমরা চেষ্টাটি তো করতে পারি!

আমাদের এই চেষ্টা কি করবে জানেন? এই যে আমাদের ছেলেমেয়েরা বেড়ে উঠছে, এদেরকে উদার হওয়া শেখাবে। আমাদের ছেলেমেয়েরা বুকের ভেতরে মানুষের জন্যে দয়ামায়া নিয়ে বড় হবে। মানুষে মানুষে ভেদ করবে না। সকল মানুষকেই তারা সন্মান করতে শিখবে। আর আপনি তখন হবেন, ওই যে বললাম- বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরতম মানুষদের একজন। ছেলেবেলায় পড়া কবি সুনির্মল বসুর সে কবিতাটি মনে আছে? সেই যে-
আকাশ আমায় শিক্ষা দিল
উদার হতে ভাই রে;
কর্মী হবার মন্ত্র আমি
বায়ুর পাই রে।

একবার আকাশের দিকে তাকিয়ে দেখুন, বুঝতে পারবেন আপনি কত ক্ষুদ্র। সমুদ্রের দিয়ে তাকালে জানবেন আপনার আসলে কোনও ক্ষমতা নেই। কিন্তু উদারতা আপনাকে এমন অনুভূতি দেবে যে আপনার কাছে মৃত্যুকেও তুচ্ছ মনে হবে। কারণ কি জানেন?

কারণ হলো, ভালোবাসার মতো শ্রেষ্ঠ অর্জন পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি নেই।

Leave a Comment

You may also like

Copyright @2023 – All Right Reserved by Shah’s Writing