আপন মানুষ

0 comment 65 views

কথা হলো ঠিক জায়গাটিতে ঠিক মানুষটির পাশে দাঁড়িয়ে আছেন কিনা সেইটি নিশ্চিত হওয়াটা জরুরি। এরপর সম্পর্কের কথা ভাবুন।

এখন প্রশ্ন হলো, আপনার পাশের মানুষটিই যে সঠিক মানুষ সেটি আপনি জানবেন কি করে?

এ বিষয়ে এক বন্ধু বললেন, যখন দেখবেন দুজনেই ভালো আছেন তখন জানবেন আপনার পাশে থাকা মানুষটি অন্তত আপনার জন্যে সঠিক।

আরে! আমার তো আমার জন্যেই ঠিকঠাক মানুষটি দরকার! তাহলে তো ঠিকই আছে! অত এদিক ওদিক ভাবনা ভাবার কি দরকার!

দরকার আছে আসলে। কেননা দুজন মানুষ যখন পাশাপাশি থেকে বাস করেন তখন নানান বিতণ্ডাও তাদের মধ্যে বাস করে। বাস করে খুনসুটি। থাকে ঝগড়া। এই বিতণ্ডা, খুনসুটি আর ঝগড়ার আসল পরিচয়টি বুঝতে পারছেন তো? হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন, এদের পরিচয় হলো অধিকার বোধ। বিশ্বাস না হলে এদের ন্যাশনাল আইডি কার্ড দেখুন- দেখেছেন? ঠিক বলেছি না? দেখলেন তো?

অধিকার বোধটি কোত্থেকে আসে আসে জানেন? আপনার বুকের গভীরে যে ভালোবাসার সংসার- তাদের থেকেই। ফলে এই ঝগড়া কিংবা চাপিয়ে দেওয়া, যাই বলুন- এটি আসলে অধিকার বোধ। আবার দেখুন সে কিন্তু তার ভালো লাগা, আনন্দ, বেদনা কষ্টগুলোর কথাও আপনাকে জানাচ্ছে- মানে আপনার সঙ্গে ভাগ করছে। আপনিও করছেন। এটা যদি হয় আপনার চলমান জীবনের নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা- তাহলে আপনার পাশে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে থাকা মানুষটি আপনারই মানুষ। সঠিক মানুষ।

সেকারণে আপনার পাশের মানুষটির সঙ্গে আপনার যে মতের অনৈক্য, দ্বিধা কিংবা ঝগড়া- যাই বলুন না কেন- সেটি আসলে অধিকার বোধ। আমরা কাউকে আপন ভাবি বলেই খুব আন্তরিক ভাবেই চাই সে আমাদের মতবাদের আদর্শকে বিশ্বাস করুক। ঠিক এভাবেই নির্মিত হয় সমাজের বিভিন্ন পরিকাঠামো। কেননা মানুষ বারো রকমের বলেই কোনো একটি পরিকাঠামো দিয়ে মানুষের চলে না, চলবেও না। এবং আপাত এই পরিকাঠামোই একেকটি দর্শন।

এজন্যেই বলছিলাম, আগে নিশ্চিত হোন আপনার পাশে দাঁড়ানো মানুষটি আসলেই আপনার মানুষ কিনা- তারপরে সম্পর্কের কথা ভাবুন।

Leave a Comment

You may also like

Copyright @2023 – All Right Reserved by Shah’s Writing